সূর্য গ্রহণ

ব্যাবিলনীয় সভ্যতা থেকে পরিচিত এই সূর্য গ্রহণ । প্রায় ১০০০ খ্রিষ্টাব্দ পূর্বে সূর্য গ্রহণের পুর্বাভাস মানুষ দিতে পারত । ঐ সময়ে ক্যালেন্ডারে জ্যোতিষীরা সূর্য গ্রহণকে নিয়ে একটি আশ্চর্য মিল লক্ষ করেন । তারা দেখেন, প্রতি ১৮ বছর ১০ দিন পরপর সূর্য গ্রহণ পুনরাবর্তিত হয় । সেই থেকে সারোস চক্র দিয়ে পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ গুলি চিহ্নিত করার প্রথা চালু হয় । সারোস কথাতির ল্যাটিন অর্থ পুনরাবৃত্তি । ২২ জুলাই, বাংলাদেশ থেকে যে পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা যায়, তা ছিল ১৩৬ সারোসচক্রের ৭১টির মধ্যে ৩৭ তম গ্রহণ । প্রতিটি সারোস চক্র প্রায় ৭৫টি গ্রহণে সমাপ্ত হয় । পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণে হঠাত দিনের বেলা রাতের অন্ধকার নেমে আসে । সেই সাথে চারদিকের প্রাকৃতিক পরিবেশে হঠাত একটা পরিবর্তন আসে । পাখিরা সন্ধার আভাস পেয়ে বনে ফিরে যেতে থাকে । হঠাত তাপমাত্রা কমতে থাকে ।
বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা নিরীক্ষায় দেখা যায়, চন্দ্রগ্রহণের চেয়ে সূর্যগ্রহণ বেশিবার হয় । প্রতি সাতটি গ্রহণের ২টি চন্দ্রগ্রহণ হলে বাকি ৫টিই সূর্যগ্রহণ । তবে অধিকাংশ সূর্যগ্রহণ সমুদ্রপৃষ্ঠ বা পর্বতমালার উপর দিয়ে গেলে তা আমাদের চোখে পড়েনা । শুধুমাত্র লোকালয়ের মধ্য দিয়ে গেলেই তা আমাদের চোখে পড়ে আর তাতেই যন্ত্রপাতি দিয়ে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা চালানো যায় । এই সুযোগে বিজ্ঞানীরা তাদের নিজ নিজ গবেষণা চালানোর সুযোগ নেন । যদিও কৃত্রিম ভাবে করা গ্রাফ দিয়ে সূর্যকে ঢেকে ছটাকমণ্ডলের ছবি তোলা বা পর্যবেক্ষন করা সম্ভব ।  
সম্পাদনায়
জিওন আহমেদ
ইইই চুয়েট

Post a Comment

0 Comments