কসমিক স্ট্রিং থিওরি / টাইম ট্রাভেলের চতুর্থ উপায়


কসমিক স্ট্রিং থিওরি
জ্যোতির্বিদগণ মহাকাশের কিছু অদ্ভুত গঠন পর্যবেক্ষন করে থাকেন । কসমিক স্ট্রিং বা কসমিক তন্তু এর মধ্যে অন্যতম । তাছাড়া রয়েছে একক মাত্রা হিসেবে মহাবিশ্বের ফাটল ।
কসমিক স্ট্রিং বা কসমিক তন্তু এক্ষেত্রে সময়ের দিক পরিবর্তন করতে পারে । প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের আস্ট্রোফিজিক্সট জে রিচার্ড গড উল্লেখ করেন, “কসমিক স্ট্রিং বা কসমিক তন্তু হয়তো অসীম অথবা তারা লুপ আকারে রয়েছে, যার কোন শেষ নেই । আর তারা হতে পারে, সময়ের দূরত্বের মত শৃঙ্খলিত” ।
ধারণা করা হয়েছে, তারা সৃষ্টি বিলিয়ন বছর আগে এবং বিগ-ব্যাং এর পরবর্তী সময়ে । যার কারণে তারা অধিক পরিমাণ ভর বিশিষ্ট । কিছু বিজ্ঞানী বিশ্বাস করেন, তারা নিজেদের মধ্যে অদৃশ্যভাবে স্থান-কাল বাঁকিয়ে দেয় । এক্ষেত্রে দুইটি তন্তু সমান্তরাল ভাবে কাছাকাছি অবস্থান করে স্থান-কালকে এতটাই শক্তিতে বাঁকিয়ে ফেলে যে, সেই গাঠনিক বৈশিষ্ট্যের কারণে হয়তো স্থান সাপেক্ষে টাইম-ট্রাভেল সম্ভব হতে পারে ।
তবে টাইম-ট্রাভেলের এই উপায়ে কিছু সীমাবদ্ধতাও রয়েছে । প্রধান সীমাবদ্ধতা হল, বিগ-ব্যাং সহ কসমিক স্ট্রিং এখনও তাত্ত্বিক । এর বাস্তবিক কোন অস্তিত্ব এখনও আবিষ্কার হয়নি । আর এটা এমন একটি বিষয়, যা উন্নত জাতি(Super Civilization) ব্যবহার এবং নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হতে পারে । উন্নত জাতী তারাই, যারা তাদের নিজেদের গ্রহের শক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম । প্রফেসর গট আরও বলেন, এটি আমাদের কতৃত্বের বাহিরে । কারণ আমরা এমন এক জাতি, যারা তাদের গ্রহের শক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম নয় ।
লেখক
জিওন আহমেদ
ইইই চুয়েট

Post a Comment

0 Comments