কোয়ান্টা বা ফোটন

আপনি বাজারে গেলেন এবং দেখলেন- আপনার কাছে যা টাকা আছে, তা দিয়ে দুই কেজি একশত গ্রাম আলু কেনা যাবে । আপনি তাই করলেন । অর্থাৎ দুই কেজি একশত গ্রাম আলু নিয়ে আসলেন । কিন্তু আপনি যদি কোন সুপার শপ থেকে আলু কিনতে চান, সেখানে এক কেজি করে আলুর একটা করে প্যাকেট করা আছে । আপনি চাইলে সেখান থেকে যেকোন পরিমাণ আলু কিনতে পারবেন । আপনাকে এক কেজির গুণিতক পরিমাণ আলু কিনতে হবে । অর্থাৎ এক কেজি নিলে একটা প্যাকেট, আট কেজি নিলে আটটি প্যাকেট । আপনি চাইলে ২কেজি ১০০ গ্রাম আলু সেখানে পাবেন না ।

আলো কি তরঙ্গ নাকি কণা, এটা নিয়ে পদার্থবিজ্ঞানে তুমুল বিতর্ক চলছিল । এর আগে নিউটন বলেছিলে, আলো হল-কণা । অর্থাৎ আমরা যখন আলো জ্বালাই, তখন উৎস থেকে কণা গুলো দেয়ালে গিয়ে প্রতিপ্রভা সৃষ্টি করে এবং আমরা দেয়ালকে দেখতে পাই । আবার হাইগেন বলছিলেন, আলো হল তরঙ্গ । আর এগুলো নিয়েই বিতর্ক চলছিল প্রায় আড়াইশত বছর । এরপর বিংশ শতাব্দীতে পদার্থবিদ ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক প্রস্তাব করেন, আলো হল এক এবং একাধিক শক্তির প্যাকেট । যেখানে একটি প্যাকেটের শক্তিকে তিনি নাম দিলেন, কোয়ান্টা । অনেকটা এক কেজি আলুর প্যাকেটের মত । আপনি যেমন চাইলেও এক কেজির চেয়ে কম বা ভগ্নাংশ পরিমাণ আলু কিনতে পারেন না, তেমনি আলোর সর্বনিম্ন পরিমাণ হল- এক কোয়ান্টার সমান । অনেকটা এমন, আমরা যদি আলোকে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র করে কাটতে পারতাম, তবে আমাদের কাছে সবচেয়ে ক্ষুদ্র টুকরাটির পরিমাণ হত- এক ফোটনের সমান । যাকে আর ক্ষুদ্র করাও সম্ভব নয় । অর্থাৎ আমরা যখন আলো জ্বালাই, তখন উৎস থেকে অনেকগুলো ফোটন উৎস থেকে ছুটে যায় ।

আলোর এই বৈশিষ্ট্য, আলো নিয়ে অনেকগুলো বিতর্ককে নিস্তব্ধ করে দিয়ে নতুন অনেকগুলো প্রশ্নের জন্ম দেয় । কিন্তু পরবর্তিতে ডি-ব্রগলি প্রমাণ করেন, আলোর মধ্যে একই সাথে কণা এবং তরঙ্গ উভয় ধর্মই বিদ্যমান ।

জিওন আহমেদ

Post a Comment

0 Comments