প্রেম থেকে দারুণ কিছু | প্রেম এবং চুম্বকত্ব

চার পাঁচ বছরের প্রথম প্রেম হঠাৎ করে ব্রেকআপ হলে কি ঘটে তা হয়তো অনেকেই জানেন । স্বভাবতই সেই সদ্য প্রাক্তনের আবার সেই প্রেম ফিরে পাওয়ার তীব্র আকাঙ্ক্ষা কাজ করে । তার সাথে কাটানো সময় এবং স্মৃতি বারবার মনে পড়তে থাকে । কারণ মানুষের ধর্ম এটাই যে, সে কোন কিছু অর্জন করলে তা হারাতে চায় না । সে কখনও ফিরে না আসলেও সারাজীবন মনে রাখে । যাকে আমরা নাম দিতে পারি লাভ হিস্টেরিসিস । যার অর্থ দাঁড়ায়, ভালবাসা দ্বারা একবার আবিষ্ট হলে তা হারাতে না চাওয়া । পদার্থবিজ্ঞান বলে, প্রকৃতির বেশিরভাগ পদার্থই ফেরো চৌম্বক পদার্থ যাকে আমরা যাকে প্রেমিক আখ্যা দিতে পারি । আর ফেরো চৌম্বক পদার্থকে যদি একবার চুম্বকায়িত করা যায়, সেই চৌম্বক সরায় নিলে তার চুম্বকত্ব চলে যাওয়ার কথা থাকলেও এর মাঝে কিছু চুম্বকত্ব রয়ে যায় । সে তা ত্যাগ করতে চায়না । জোর করলেও না । সারাজীবন চুম্বকত্ব রয়ে যায় । পদার্থের এইযে চুম্বকত্ব হারাতে না চাওয়ার প্রবণতা, তাকে বলা হয় হিস্টেরিসিস । বোঝাই যাচ্ছে দুই দিক থেকেই মিল আছে ।

আবার সেই স্বর্গের অপ্সরী জীবনে এসে তার জীবনটা ভালবাসায় কানায় কানায় পূর্ণ করে দিল, সে চলে গেলেও তার সেই ভালবাসার অপূর্ণতায় বুক চিনচিন ব্যাথা করে । কারণ সে চলে গেলেও তার ভালবাসা বুকের মাঝে রয়ে যায় । এই ভালবাসা বুকের মাঝে থেকে যাওয়ার ক্ষমতা কতটা, তা নির্ভর করছে প্রেমিক বা প্রেমিকার উপর । সে চলে যাওয়ায় প্রাক্তনের ভিতর কি পরিমাণ ভালবাসা রয়ে যায়, একে নাম দিচ্ছি লাভ রেমিনেন্স । যার অর্থ ধার করলাম ভালবাসার ধারকত্ব । অর্থাৎ চলে যাওয়ার পর বা প্রাক্তনের প্রতি সেই ভালবাসার ধারকত্ব । বুঝতেই পারছেন, যার লাভ রেমিনেন্স যত বেশি সে প্রেমিক যে ততটাই প্রেম পুষ্টিগুণ সম্পন্ন এবং তাকে ভাল প্রেমিক বানানো যায়, এটা মানতে কারও আপত্তি নেই ।

এর মাঝেও বিজ্ঞানটা বোঝা যাক । কোন ফেরো চৌম্বক পদার্থের মধ্যে যে চুম্বকত্ব থেকে যাচ্ছে, এই থেকে যাওয়ার ক্ষমতা বা কত বেশি পরিমাণ থেকে যাচ্ছে তাকে বলা হয় রেমিনেন্স বা চৌম্বক ধারকত্ব । এক্ষেত্রেও যে পদার্থের রেমিনেন্স যত বেশি, সে পদার্থকে তত ভাল মানের চুম্বক তৈরিতে ব্যবহার করা সম্ভব ।

তবে এখানে একটা কথা আছে, প্রাক্তনের প্রতি এই ভালবাসা যে যত বেশি ধরে রাখবে বা যার লাভ রেমিনেন্স যত বেশি হবে তার যেমন দেবদাস হওয়ার সম্ভবনা তত বেশি । তেমনি যে পদার্থের রেমিনেন্স যত বেশি, তাকে স্থায়ী চুম্বক হিসেবে তৈরি করাও তত সহজ ।

যাই হোক বলেছিলাম, প্রেম থেকে দারুণ কিছু শিখতে । কিন্তু সত্যি এটাই, আমরা এই প্রকৃতি থেকে ভিন্ন কোন উপাদান নই । আমরা এই প্রকৃতির মৌলিক উপাদানগুলোর নিছক সংকলন মাত্র । মানুষ বলতে জীব তৈরির যে কাঁচামাল, যেমনঃ অক্সিজেন, নাইট্রোজেন, কার্বন ডাইঅক্সাইড, পানি প্রভৃতি এই প্রকৃতি থেকেই নেওয়া । তাই প্রকৃতির আর সব মৌলিক বা জড় উপাদানের সাথে জীবের মিল বিদ্যমান । হ্যাপি সায়েন্স ।

জিওন আহমেদ

Post a Comment

0 Comments